|| Duska Vrhovac ||

 

Duska Vrhovac (Duška Vrhovac), poet, writer, journalist and translator, born in 1947 in Banja Luka, ex Yugoslavia. She graduated from the Faculty of Philology of Belgrade University. She has published 20 books of poetry, many of which have been translated, in part or in full, into more than 20 languages. She is considered one of the most important contemporary poets from Serbia. She has received important international awards for poetry and the gold medal for the “generosity, dedication, perseverance and creative contributions that are made to spread the culture of the nationalities of the Republic of Serbia". She participated in many literary and other gatherings, festivals and manifestations in the country and abroad.

Duska Vrhovac is a member of the Association of Writers of Serbia (Vice President of the Board for International Relations), Association of Literary Translators of Serbia, of the International Federation of Journalists, and she is Ambassador to Serbia by Poets of the World (Movimiento Poetas del Mundo) and current vice president for Europe. She lives in Belgrade/ Serbia.

 

 

MYSTIC RAINS

 

I was picking red peonies with you last night

by the muddy Bistrica river.

From the sky were falling white petals on us

from the hands of souls who haven’t found peace.

From grass could be heard whisperings of ancient lovers,

the sound of horsemen clatter was coming from the road,

as in the poems of Hikmet Nazim.

 

While drops of the mystic rain were colouring our faces

Your eyes were sparkling balsam for the soul

and with some damned synergy

your hot breath on my mature lips

was turning into scarlet dew drops.

Everything was unreal except the night,

except our tears and blessings of our Lord.

 

Now I know that you are and what is and what is not.

If you were a blue dawn of my gentle death

and painful twilight of their outgoing youth;

if you were stopped voice of the primordial scream,

the runaway dream of fullness of a sleeping angel

who got tired of the excessive desire

and wished to rest on my shoulder.

 

 

 

TO FIND MY OWN WORD

 

Countless poets have already told

how they see a whole world in a grain of sand,

infinity in the palm of a hand, all heaven in an eye,

and how a single day can be an eternity..

 

Many of them have glorified love,

cursed suffering, sorrow and pain,

described death, hell, paradise and a happy home,

earnest that everlasting shall be their work and name.

 

Everything has been said and seen,

forewarned, sung and written about,

and there is nothing that has never been.

 

So why then do here I stand

Like the first woman and the first man,

As if I were a God.

 

To say what was told?

To describe what is written?

To find my own word.

 

 

 

 

 

|| Hussein Habasch ||

 

He is a poet from AFRIN, KURDISTAN, lives in Bonn-Germany. Born in 1970. He writes in Kurdish and Arabic.Some of his poems were translated to many languages such as; English, German, Spanish, French, Chinese, Turkish, Persian, Albanian, Uzbek, Russian and Romanian. A selection of his poems have been published in more than an international poetic anthology. He wrote these books: Drowning in Roses/ Azmina Publishing House, Amman, and Alwah Publishing House, Madrid 2002. Fugitives across Ivros River/ Sanabel Publishing House, Cairo 2004. Higher than Desire and more Delicious than the Gazelle's Flank / Alwah Publishing House, Madrid 2007. Delusions to Salim Barakat/ Alzaman Publishing House, Damascus 2009. A flying Angel (Texts about Syrian children) Moment Publishing House, London 2013. A flying Angel (Texts about Syrian children) in English, Bogdani Publishing House 2015. No pasarán, in Spanish, the book published by the International Poetry Festival in Puerto Rico 2016. Copaci Cu Chef, in Romanian/ Ars Longa Publishing House, Bucharest 2017. Dos Árboles, in Spanish, the book published by the International Poetry Festival in El Salvador 2017. Tiempos de Guerra, in Spanish, the book published by the International Poetry Festival in Costa Rica.Participated Festivals: He participated in many international festivals of poetry, for example in Colombia, Nicaragua, France, Puerto Rico, Mexico, Germany, Romania, Lithuaia, Morocco, Ecuador, El Salvador, Kosovo, Costa Rica, Bulgaria.

 

 

I don’t Care How or Where I Die

By Hussein Habasch

 

I rest my head on the rock of the oblivion!
Like a chorus I echo the saddest song as follow:
I don’t care if die poor,
or poorer than the poorest persons of the world
my two children are eating apple,
and chewing on pomegranate seeds
This is the most important.

I don’t care if I die,
then I woke up walking alone in my funeral.
I do not care if I never wake up
My Two children are whispering in joy and happiness
as if they were two lovers
and this is the most Important!

Sargon Bolus had passed away in Berlin alone
as he always alone,
Totter in the brink of death as if he was a drunken Angel
he was sick!

As a forgotten Prince,
Kamal Seibty died in a sofa in his home in Holland,

Ageel Ali had passed away in a sidewalk,
as if he was formed to be the crown of all the homeless.

Mahmoud Albreekan was killed by a knife of a thief,
he was a lighthouse guiding the pirates to his penniless pocket

Then why should I care if I die in a bar, ballroom,
cabaret or in a whore’s arms in a brothel!
My two children are eating French fries with mayonnaise.
And this is the most important.

I don’t care if I will die drowned, incinerated, strangled, butchered
Or committed suicide by carbon monoxide like my sister Sylvia Plath!
I do not care if I will be put to death in my birthday
like my brother Delshad Meruwani the strange angel of Kurdistan!

I don’t care if I will die hungry, imprison or under the wheels of a reckless train Like my spiritual twin Attila József.
I don’t care if I would be murdered by the hands of a mobs like Lorca
Or hanged like Hassan Mutlak, Dabada of Baghdad.
More importantly, my two babies are okay!
And I write simple farewell love poems
Inspired by the flirtation of the waitresses
and the beautiful young girls, passing in front of the cafe

My two children are playing
My daughter combing her Barbie’s hair
And my son is riding his tiny motorbike
This is the most important.

I don’t care if I will be stabbed by a treacherous knife
or by a dose of venom like my uncle Socrates.
I don’t care if my death would occur in Athens, Berlin, Beirut, Damascus, London, Madrid or beautiful Washington!!
Cities are similar
Death is a wanderer dog, prowling along the skylines!
My children are rolling a ball -like planet, and seem fantastic
This is the most important.

I don’t care if I die homeless in exile, achy, sad or drunk
Or bitten by friends’ tusks like most of the poets
It is important that in this moment I’m listening to Maria Callas
Deep down my inner self is moisten by her melodious voice!

And my two children slept innocently amazing
This is the most important.

I don’t care if I stutter with drivelling,
or sailing the madness swirl
Like my companion Cioran
Roaming the night from the insomnia,
Putting my fate in hands of the coldness and the delirium

My two children smiling in theirs sleep,
dreaming, perhaps about birds or butterflies
this is the most important.

I don’t care if I live or die!
No different!

Death is the departure of the soul,
I lost my soul a long time ago
in the forests of the oblivion.
Why should I care now!
I don’t Care!

 

Translated by Solara Sabah

 

MAI VĂN PHẤN (Vietnam)

 

Vietnamese poet Mai Văn Phấn was born 1955 in Ninh Bình, Red River Delta in North Vietnam. Currently, he is living and writing poems in Hải Phòng city. He has won number of Vietnamese and international literary awards, including the Vietnam Writers' Association Award in 2010 and the Cikada Literary Prize of Sweden in 2017. He has published 15 poetry books and 1 book "Critiques - Essays" in Vietnam. 14 poetry books of his are published and released in foreign countries and on Amazon's book distribution network.

Poems of Mai Văn Phấn are translated into 24 languages, including: English, French, Russian, Spanish, German, Swedish, Albanian, Serbian, Macedonian, Montenegrin, Slovak, Rumanian, Turkish, Uzbek, Kazakh, Arabic, Chinese, Japanese,  Korean, Indonesian, Thai, Nepalese, Hindi & Bengali (India).

 

মাই ভ্যান ফ্যান - Mai Văn Phấn (Vietnam)

বাংলা ভাষায় অনুবাদ করেছেন ডঃ মৌসুমী ঘোষ

Translated from Vietnamese into English by Pornpen Hantrakool

Translated from English into Bengali by Mousumi Ghosh

 

 

মাই ভ্যান ফ্যান এর তিনটি কবিতা

Three poems of Mai Văn Phấn

 

 

ঋতুদের মাঝে রাত

 

প্রায় ভোর

গভীর ঘুমে আমি

বুঝিনি শুয়েছি গ্রীষ্মের পাশেই

 

Night Between Seasons

 

Almost morning

In deep sleep I was not aware

Of lying next to summer

 

 

ভাগ্য

 

এখনো মুখভর্তি কফি নিয়ে

চড়ুই যুগলকে দেখি

মৈথুনরত এক আঁশফল গাছে

  

Luck

 

Still with a mouthful of coffee

I see a pair of sparrows

Copulating in a longan tree

 

 

বাগানে

 

আমি কুড়োলাম

নটি ফুল

গুণতে ভুললাম এক্ষুনি যাকে ধরলাম

 

In the Garden

 

I gather

Nine flowers

Forgetting to count the one just held

 

|| আবুল খায়ের ||

 

বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা হলো ফুটবল। ১৯৩০ সালে উরুগুয়েতে প্রথম বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতার আসর হওয়ার পর থেকে শুরু করে, কালের বিবর্তনে এ খেলায় এসেছে অনেক পরিবর্তন, জনপ্রিয়তাও বেড়েছে অনেকগুণ বেশী। ২০১৮ সালে দাঁড়িয়ে ফিফা বিশ্বকাপ বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও উত্তেজনায় ভরপুর একটি খেলা। পৃথিবীর ২৩০ টি দেশের মধ্যে এমন কোন দেশ পাওয়া যাবে না, যেখানে ফিফা ফুটবল খেলা উপভোগ করা হচ্ছে না। সারা বিশ্বব্যাপী চলছে বিশ্বকাপ ফুটবলের উন্মাদনা। শিশু থেকে শুরু করে বয়ো-বৃদ্ধ পর্যন্ত খেলা দেখা, উপভোগ করা ও সাথে সাথে আবেগ, উচ্ছ্বাস প্রকাশ করা নিয়মিত ব্যাপার। আর এ থেকে দূরে থাকা মানে পিছিয়ে পড়ার মতো অবস্থা। যেন কোন গুরুত্বপূর্ণ কিছুকে পাশ কাটিয়ে যাওয়া। তবে ভয়াবহ ও চিন্তার বিষয় হলো, বর্তমান অবস্থায় খেলা দেখা; আবেগ বা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করার মধ্যে আর সীমাবদ্ধ নেই। রীতিমতো মারামারি বা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার নানা রকম ফন্দি ফিকির করতে দেখা যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে অভিজাত এলাকার রেস্টুরেন্টে বসে প্রিয় দলের পক্ষে বা প্রিয় খেলোয়াড়ের পক্ষে সাফাই গাওয়া অব্যাহত থাকছে স্বার্থ-হীনভাবে। বিতর্কের ঝড় এখন তুঙ্গে। তর্ক-বিতর্ক করা ছাড়াও মারামারিতে জড়িয়ে পড়তেও দেখা যাচ্ছে কোথাও কোথাও।

এদেশে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার সমর্থক সবচেয়ে বেশী । ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার খেলাকে কেন্দ্র করে নোয়াখালীর সেনবাগে, ডুমুরিয়া গ্রামে সমর্থকদের মধ্যে বিতর্কে জড়িয়ে মারামারিতে কয়েকজনকে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার খবরও পত্রিকায় দেখা গেছে। একইভাবে দু’দল প্রতিপক্ষ সমর্থকদের মধ্যে লক্ষীপুরেও ঘটেছে মারামারির ঘটনা। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রায় প্রতিদিনই কিছু না কিছু ছোট-খাটো অপ্রীতিকর ঘটনার সূত্রপাত হতে দেখা যাচ্ছে। যা আশংকাজনক ও চিন্তার বিষয়ও বটে।

ক্রিকেট খেলায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে ঠিকই। কিন্তু ফুটবল খেলায় এখনো অনেক পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ, তা বলার অপেৰা রাখে না। যদিও অতি সম্প্রতি নারী ফুটবলে কিছুটা হলেও আলোর মুখ দেখা যাচ্ছে। বাংলাদেশের নারী ফুটবল দলের সদস্যগণ, আমাদের মুখ কিছুটা হলেও উজ্জ্বল করতে সচেষ্ট হয়েছে এবং কৃতিত্বের দাবীও রাখছে বিশ্ব ইতিহাসে। বলা বাহুল্য যে, জনপ্রিয় এ খেলার প্রতি বাঙালীদের আগ্রহ, উৎসাহ ও উদ্দীপনা অন্য যেকোনো খেলার চেয়ে অনেক বেশী। দিন দিন তা বেড়েই চলছে। আর সেটা বহুবছর আগে থেকেই হয়ে আসছে। বড় বড় পতাকা বানিয়ে রাস্তায়, হাটে, ঘাটে, বাজারে টাঙিয়ে দেয়া; এমনকি বাড়ির ছাদে পতপত করে উড়তে দেখা যাচ্ছে প্রিয় দল বা সমর্থিত দেশের পতাকা। নিজের পছন্দের দলের পক্ষে সমর্থকদের কেউ তিন কিলোমিটার আবার কেউ পাঁচ কিলোমিটার লম্বা পতাকা বানিয়ে জানান দেয়ার চেষ্টা করছে যে, তারা তাদের প্রিয় দলকে কতোটা ভালোবাসে। কেউ পুরো বহুতল বাড়িকে দলের পতাকার রঙে রাঙিয়ে একনিষ্ঠ সমর্থক হিসেবে নিজেকে জাহির করার সুযোগ কাজে লাগাচ্ছে। আবার কেউ শত শত পতাকা দিয়ে পুরো এলাকাকে পছন্দের দল বা দেশের পতাকায় সাজিয়ে তুলছে। খেলায় জিতলে খিচুরি, পোলাও-বিরানী বা খানাপিনার ব্যবস্থা ছাড়াও; অনেকে রীতিমতো মেজবানি খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করতে দেখা যাচ্ছে।

কোন কোন বাড়িতে একাধিক দলের পতাকা শোভা পাচ্ছে। কারণ পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন দলের সমর্থক। কেউ জার্মানি, কেউ ফ্রান্স, পর্তুগাল বা কেউ আর্জেন্টিনা, কেউ ব্রাজিল। এমন কোন বাড়ি নেই, যে বাড়িতে কোন না কোন দলের বা দেশের পতাকা টাঙানো হয়নি। কার পতাকার সাইজ কতো বড়, এ নিয়ে খোশগল্প করতে দেখা যায় সমর্থকদের মধ্যে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম টুইটার, ফেসবুকে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড় বা দলের নানা রকম ব্যঙ্গ চিত্র বা ছবি প্রকাশ করতে দেখা যাচ্ছে। নিজের প্রিয় দল খেলায় হেরে গেলেও চলে নানা রকম কসরত প্রদর্শন। গালি-গালাজ ও অশোভনীয় আচরণ করতেও দেখা যাচ্ছে কাউকে কাউকে। যেটা কোনক্রমেই উচিত নয়। খেলা নিয়ে যেকোনো ধরনে অসদাচরণ পরিহার করা সকলের কাম্য।

বাংলাদেশে নেইমার ও মেসির ভক্ত বেশী । খেলার সময় এই খেলোয়াড়দের কোন রকম ভুল হতে দেখলেই চলে তুমুল বিতর্ক, উচ্ছ্বাস বা আবেগ তাড়িত হই-হুল্লোড়। আবার খেলায় ভালো করা বা গোল করা দেখলেও সমর্থকদের মধ্যে চলে একই ভাবে আনন্দ প্রকাশের আয়োজন। নানা রকম মন্তব্য বা স্ট্যাটাস দিয়ে জানান দেয়া হয় যে আমার প্রিয় খেলোয়াড়ই কেবল এমনটি করতে পেরেছে। আর এই সব টাইমলাইনে বা স্ট্যাটাসে মন্তব্য করতেও হুমড়ি খেয়ে পড়ে সমর্থকরা। কার স্ট্যাটাসে কতোগুলো লাইক বা মন্তব্য পড়েছে তা নিয়েও চলে আলোচনা ও সমালোচনা। হাতাহাতি, মারামারি, আক্রমণ পাল্টা আক্রমণ এই রকম ছোটো খাটো অনেক ঘটনা কিন্তু থাকছেই নিয়মিত। ঢাকাতে এক আর্জেন্টিনা ভক্তের সুইসাইড করার ঘটনাও ঘটেছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখা গেছে। এরকম ঘটনা বিশ্বের আর কোথাও দেখা গেছে কিনা! সেই রকম কোনো তথ্য জানা যায়নি। কিন্তু বাংলাদেশে ঘটছে! সম্প্রতি ব্রাজিলের তিনজন সাংবাদিক বাংলাদেশ সফর করে এ মন্তব্য করেছেন যে, বাংলাদেশের মতো এতো ব্রাজিলের সমর্থক পৃথিবীর আর কোথাও তারা দেখেননি। একই কথা দাবী করছে আর্জেন্টিনার সংবাদ মাধ্যমগুলো! তাঁদের ভাষায় এটা একটা বিরল ঘটনা। কারণ এতো দূরের দেশ ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা। যে দেশগুলো সম্পর্কে ভালোভাবে অনেকেই কিছু জানে না। জানার সুযোগও নেই। কিন্তু ফুটবলারদের নাম অনেকেরই মুখস্থ এবং ফুটবল দলের প্রতি অন্ধ সমর্থন এতো বেশী, যা কল্পনাতীত!।

এখন প্রশ্ন হতে পারে। খেলা নিয়ে কেন এতো উৎসাহ বা উচ্ছ্বাস? কেউ কেউ বলেন, দেশে বেকার ও হতাশাগ্রস্তদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারণেই খেলা দেখার জন্য যথেষ্ট সময় পাচ্ছে এবং সমর্থকদের অহেতুক ঘটনা প্রবাহ জন্মদিতে সহায়ক পরিবেশ পাচ্ছে। বিনোদন প্রিয় বাঙালির বিকল্প কোন বিনোদনের ব্যবস্থা না থাকায়, ফুটবল খেলা দেখা ও উপভোগ করাকে বিনোদন হিসেবে গ্রহণ করাও উচ্ছ্বাস প্রকাশের কারণ হিসেবে দেখা যেতে পারে।

তবে চিন্তার বিষয় এই যে, ভিনদেশী পতাকার সাইজ বিরাট আকার, তার পাশেই ছোট একটা বাংলাদেশের পতাকা উড়ানো কেমন যেন একটা বেমানান। এটি নিজ দেশের পতাকার প্রতি অপমানজনক কিনা তা ভেবে দেখার সুযোগ আছে। আবার কেউ কেউ একই বাঁশের খুঁটিতে একেবারে বাঁশের মাথায় ছোট একটা বাংলাদেশের পতাকা এবং তারই একটু নীচে বিরাট সাইজের একটা ভিনদেশীয় পতাকা উড়ানো; কেমন যেন একটু দৃষ্টিকটু এবং আপত্তিকরও মনে হয়। এধরনের উচ্ছ্বাস সমর্থনযোগ্য কিনা? বা  উচিত কিনা? তা ভেবে দেখার সময় এসেছে। দিন দিন এসব যেন সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশী না হয়ে যায়, সেদিকেও সচেতন নাগরিকদের খেয়াল রাখতে হবে। অতিরিক্ত উচ্ছ্বাস যেন ক্ষতিকর কোন কিছুকে উসকে দিতে না পারে। এবং নিজের সংস্কৃতির ওপর কোনরূপ নেতিবাচক প্রভাব না পড়ে, সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে সংশ্লিষ্টদের। আগে দেশীয় ক্রীড়া ও সংস্কৃতির বিকাশ, পরে অন্য সব। তাই, ফুটবল খেলায় বাংলাদেশের উৎকর্ষতা বৃদ্ধি পাবে, বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশের ফুটবল একসময় বিশ্বকাপ বিজয়ে সামর্থ্য অর্জন করবে, সেই প্রত্যাশায় কাজ করার এখনই সময়।

 

 

|| সপ্তবর্ণা সোমা ||

 

 

এই দিনে আজ, দুটি মনে দুটি অনুভূতির আয়োজন।
একজনের সর্বনাশে
অপরজনের ফাগুন আসে!
অঝরে ঝরে বর্ষণ বারী আঁখি কোণ বেয়ে, 
ভালোবাসার স্বপ্নে বিভোর সে নতুন কাছে পেয়ে!
আহ্লাদে ভরা সে প্রেম, সেকেন্ডহ্যান্ডের মতো
নতুন মাঝে খোঁজে সুখ আছে তার যত!
একটি দীর্ঘশ্বাস নিয়ে দেখে সর্বনাশ
ফাগুন আমেজ তৃপ্ততা দেয় প্রিয়র প্রেম ফাঁস!

 

ফুটবলার

  -মোহাম্মদ কামরুজ্জামান।

সাবুর বাবা উপজেলা মুন্সেফ আর হারুণের বাবা টিএন্ডটি অফিসের টেলিফোন অপারেটর কি না, সে কথা কখনও মাথায় আসত না তখন। সাবু কেমন গোল আটকাতে পারত, হারুন কেমন বল কাটাতে পারত, খেলতে ডাকলেই কাকে যখন-তখন মাঠে পেতাম, সেগুলোই ছিল সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতার জন্য একমাত্র বিবেচনার বিষয়। তখন আমাদের ভাবের বেশ আদান-প্রদান হতো। ভাব ছিল, থানার কোয়ার্টারের রনি-রকি-হফুজদের ফুটবলে কতবার হারিয়েছি, তা-ই নিয়ে। থানার কোয়ার্টারের রনি-রকিদের হারাতে উপজেলা মুন্সেফের ছেলে হওয়া লাগত না, বৃষ্টি ভিজে ঘাসের মাঠের উপরে যে ছপ-ছপ করে বল নিয়ে ছুটতে পারত, কাদার ভিতরে যে বল লাথি দিয়ে উড়িয়ে দিতে পারত, সেই হারুনকে লাগতো। ও ছিল উপজেলা টিএন্ডটি অফিসের টেলিফোন অপারেটার হাকিম কাকার ছেলে। হারুণের লিকলিকে দুটো পায়ে, তালের আঁটির মতো উঁচু হয়ে থাকা হাঁটুর মালা দুটো, আজও আমার কাছে শক্তিমত্তা এবং কৌশলের প্রতীক।

উপজেলা পরিষদের কলোনির সাথে থানার কোয়ার্টারের ফুটবল ম্যাচ হতো। ওরা হলুদ গেঞ্জি পরে আসত, আর আমরা নীল-সাদা; আমাদের কারোরটা নেভি ব্লু, কারোরটা আকাশী, কারোরটা ফ্যাকাসে; কারোরটা কলারঅলা শার্ট, কারোরটা হাতাছাড়া স্যান্ডো গেঞ্জি; কারোরটা ছেঁড়া, কারোরটা জোড়া। একটা কিছু নীল-সাদা হলেই হলো, পরে মাঠে নেমে যেতাম। ঝুম বৃষ্টিতে খেলা হতো। এ পাশের গোল রক্ষক ঘাড় গুঁজে দাঁড়িয়ে, ওপাশের গোল রক্ষককে আবছা দেখতে পেত। কপাল বেয়ে পানির ধারা নেমে চোখ ঝাঁপসা হয়ে আসত। বৃষ্টিতে ভিজে চামড়ার বল ফুলে উঠত, লাথি দিলে পুচ-পুচ করে আওয়াজ তুলে কদ্দুর গড়িয়েই থেমে যেত, গড়গড় করে ছুটে যেত না। শুধু হারুন লাথি দিলে বল বো-বো করে উড়ে যেত,  সোজা প্রতিপক্ষের গোলপোস্ট ভেদ করে পেছনের পাট ক্ষেতে ঢুকে পড়ত।

হারুনের খুব সাহস ছিল। খেলার জন্য ওর বাবা ওকে চুলোর লাকড়ি দিয়ে পিটাত। দুপুরে মার খেয়ে বিকেলে আবার যা তাই। ওর বাবা যখন দুপুরের খাবার খেতে ঘরে এসে শুনত, ও আবারও খেলতে গিয়েছিল, হারুনকে ডাক দিত, ‘হারুন, এদিকে আসো তো, বাবা।’আমরা জাম্বুরা গাছে উঠে জানালা দিয়ে দেখতাম, হারুন হাউমাউ করে কাঁদছে, আর ওর বাবার পা জড়িয়ে ধরতে চাচ্ছে। কিন্ত ওর বাবার মারার বিরাম নেই। ক্লান্ত হয়ে গেলে দাঁড়িয়ে একবার করে দম নিয়ে নিচ্ছে, ফোঁস-ফোঁস করে হাঁপাচ্ছে, আর গড়গড় করে ভবিষ্যদ্বাণী করছে, ‘খাবি তো রিস্কা চালাইয়া, কুলিগিরি কইরা, পড়াল্যাহা করবি ক্যান্‌, খবিশের বাচ্চা খবিশ!’ তখন হারুন আমাদের হাত ইশারা করে সরে যেতে ইঙ্গিত করত। ওর বাবা লুঙ্গির কোঁচাটা শক্ত করে বেঁধে নিয়ে আবার শুরু করত। মারধোর হয়ে গেলে ওর বাবা গালাগাল করতে করতে কলের পাড়ে হাতমুখ ধুতে যেত। খকখক করে কেশে গলা পরিষ্কার করত। পানি দিয়ে উঁচুস্বরে গড়গড়া করত। আমরা জাম্বুরা গাছের পাতার ফাঁক দিয়ে হতাশ বদনে হারুনের দিকে হাত ইশারা করতাম, সাবু মুখ নাড়িয়ে ফিসফিস করত, ‘তাহলে কি আমরা আজ হারব?’ হারুন হাতের চেটোর উল্টো পিঠ দিয়ে ঠোঁটের রক্ত মুছতে মুছতে বলত, ‘তোরা যা!’ আমরা ধুপ্‌-ধুপ্‌ করে গাছ থেকে নেমে, হৈ-হৈ করে মাঠের দিকে ছুটতাম। সাবুর হাতে নেটের ব্যাগের ভেতরে আমাদের ফুটবল-আমাদের আনন্দ। সুমন পা তুলে লাথি মারতে চাইত, সাবু এক ঝটকায় সরিয়ে নিত। সুমন ভর সামলাতে না পেরে চিৎপটাং। সবাই হেসে উঠত। সুমনও হাসত, চিৎ হয়ে শুয়ে চার হাত-পা ছুড়ে হাসত। কারণ আমরা আজও জিতব-হারুন আসছে! 

দুপুরে খেতে এসে ওর বাবা যখন সুড়-ৎ-সুড়-ৎ করে নাক ডেকে বিকেলটা পার করত, হারুন এক ফাঁকে টিউবওয়েলের উপর পাড়া দিয়ে দেয়াল টপকে বাসার পেছন দিয়ে পগার পার। আমরা মাঠের কোনায় বসে দূর থেকে দেখতাম, হাফপ্যান্ট পরে নীল রঙের একমাত্র শার্টটির সবগুলো বোতাম খুলে হেঁটে হেঁটে আসছে হারুন। এসেই সুমনকে ঢ্যাপ্‌-ঢ্যাপ্‌ করে কিল। মার খাওয়ার সময় সুমনের জাম্বুরা গাছে ওঠা বারণ। অনেক বার বারণ করেছে ও। সুমন শোনে না। হারুন পোলাপানের সামনে মার খেতে পছন্দ করত না। তাই সুমনের কানপাটায় আচ্ছা করে ডলা দিত। হারুনকে ওর বাবা কখন মার শুরু করেছে, সেই সুসংবাদটা সুমনই প্রতিবার নিয়ে আসত। আর প্রতিবারই সাবু ওকে ধমক দিত, ‘তোকে তা দেখতে যেতে কে বলেছে?’

পা মচকে সন্ধ্যায় যখন ঘরে ফিরত হারুন, তখন আবার মার শুরু হতো; চুলের মুঠি ধরে চুলোর লাকড়ি দিয়ে দুই পায়ে পিটাত। হারুনের বাবা জানত না, থানা-কোয়ার্টারের ছেলেপেলেদের কাছে বিগত চার বছর ধরে উপজেলা কলোনির ছেলেপেলে ও বড়ভাইদের মুখ রক্ষা করে চলেছে ওই লিকলিকে পা দুটো। ওই পা দুটোর মালিক উপজেলা কলোনির সবার কাছে ম্যাকগাইভারের মতো বিশাল নায়ক। কতবার হারতে হারতে শেষ গোলে জিতে গেছি ওর জন্য। রেফারি শাহ আলম ভাইয়ের শেষ বাঁশি বাজার আগে, হারুন কর্নার থেকে কিক করেছে, বল ঘূর্ণি বাতাসের মতো ঘুরতে ঘুরতে গোল-কিপারের মাথার উপর দিয়ে সোজা গোল-পোস্ট ভেদ করে পেছনের পাটের ক্ষেতে। 

বাবার বদলির সুবাদে পঁচিশ বছর আগেকার ছেলেবেলার সেই মফঃস্বল শহর ছেড়ে ঢাকায় চলে এলাম। ঢাকায় এসে আর ফুটবল খেলা তেমন হতো না। মাঠ কোথায়, যে খেলব? ফুটবল খেলা দেখতে শুরু করলাম। রাত জেগে ফুটবল খেলা দেখা এক প্রকার নেশার মতো হয়ে দাঁড়াল।

এখনও ফুটবল খেলা দেখার সে নেশা আছে। এ ব্যাপারে সামিনার কাছে কম কথা শুনতে হয় না। কোপা আমেরিকা অথবা ইউরোপা লিগ শুরু হলেই, সামিনার মেজাজ খিঁচে যায়। সকালে ওর অফিস থাকে। বাসায় রাত জেগে কেউ টিভি দেখলে, ওর নাকি ঘুম হয় না। সকালে উঠে মনে হয়, ও নাকি রাতে ঘুমোয়নি। বাসার সবাই বাতি বন্ধ করে একসাথে ঘুমিয়ে পড়লেই কেবল ও ভাবতে পারে, রাতটা যথারীতি ঘুমিয়ে কাটিয়েছে। নয়তো ওর মনে হয়, সারারাত ও জেগেই ছিল। তাই ফুটবল ওর আজম্ম শক্র, আর বিশ্বকাপ ওর জন্য নরক।

সেই সামিনাকে আজ দেখলাম, রিক্সাঅলার সাথে গুটুর গুটুর করে আসন্ন বিশ্বকাপের গল্প করছে। বিশ্বকাপ এগিয়ে এলে অফিসের সবচেয়ে খেলা-বিদ্বেষী, পরলোকঅন্তপ্রাণ, গম্ভীর মানুষটিও হঠাৎ আলাপী হয়ে ওঠে, ‘পোলাপাইনের কাম দেখছেন, বিদেশীগো পতাকা কিন্যা নিজেগো ছাদ ভরতাছে? এইগুলার কুনো মানে অয়? আমার পোলারে দিছি সেইদিন থাপ্পড়। একশ ট্যাকায় নাকি পতাকা হয় না। দুইশো ট্যাকা লাগব। আমি কানে ডলা দিয়া কই, আমারে শিখাস্‌, পতাকা কিনতে কত ট্যাকা লাগে? আমি জানি না মনে করছস্‌? পোলায় কী কয় জানেন, পতাকা নাকি দুইডা লাগব? আমি জিগাই, দুইডা লাগব ক্যান্‌? একটা মাথায় দিবি আর একটা খাবি নিকি? পোলায় কী কয় জানেন, একটা ছাদে উড়াইব আর একটা রাস্তায় পুড়াইবো? দেখছেননি কারবার-ডা? হা-হা-হা-হা! নে পুড়া-দিলাম দুইডা...।’

বিশ্বকাপ আসছে দেখে, সবার ভাব সামিনাকেও বোধহয় পেয়ে বসেছে। সামিনা রিক্সাঅলার সাথে সে ভাব বিনিময় করছে। ভাব আমিও বিনিময় করি। তবে ভাব আমার পাল্টেছে। অদরকারি বিষয় নিয়ে অদরকারি লোকের সাথে ভাব বিনিময় করি না। এখন সচ্ছলতা, আর প্রতিষ্ঠা; আর সামাজিক সম্মান, আর প্রতিপত্তি নিয়ে ভাবি; আর ভেবে ভেবে ক্লান্ত হই। এসব নিয়ে ভাবতে গিয়ে অনেক নিরানন্দের দিকে নজর গিয়েছে। সেদিকে নজর দিতে গিয়ে অনেক আনন্দ হারিয়েছি, কিন্তু সাফল্য অর্জিত হয়েছে, তাতে সুখ মেলে। এখন আর সুখ অর্জন করে চলি না, সুখ রক্ষা করে চলি; অর্জনে পাওয়ার আনন্দ, আর রক্ষায় হারাবার ভয়। আমি ভয় নিয়ে বেঁচে আছি। বুক ভরে বাতাস টেনে নিয়ে ‘গো-ও-ল’ বলে বের করে দিতে পারি না। দূরে বসে খেলা দেখি, হাততালি দিই। তাই পাশে বসে সামিনাদের কথা শুনছিলাম। দালানের ছাদে ছাদে লাল-নীল-সবুজ-হলুদ পতাকা দেখছিলাম, লক্ষ করিনি, কে আগে গল্পটা শুরু করেছিল। বোধ হয় সামিনা, অথবা রিক্সাঅলাটাও হতে পারে।

রিক্সাঅলা মাঝে মাঝে পেছনের দিকে তাকাচ্ছিল। সামিনার গায়ে আকাশি নীল রঙের কামিজের ওপরে সাদা রঙের ওড়না। তা দেখেই হয়তো রিক্সাঅলা তার ফেভারিট টিমের আলাপ শুরু করে দিয়েছিল। রিক্সাঅলার গায়েও পুরনো নীল-সাদা গেঞ্জি, ঘামে জবজবে হয়ে ওর পোক্ত পিঠের উপর টানটান হয়ে লেপ্টে আছে। অনেক দিন পরতে পরতে জায়গায় জায়গায় সুতো খুলতে শুরু করেছে। পিঠের মাঝখানে একটা-দুটো জায়গায় ফুটো হয়ে গেছে।

সামিনা প্রশ্ন করলে রিক্সাঅলা পেছনে ফিরে দ্রুত জবাব দিয়ে, আবার সামনে ঘুরছে, টুংটাং করে বেল বাজিয়ে সিটে নিতম্ব ঠেকিয়ে ক্যাঁচক্যাঁচ করে প্যাডেল মারছে। প্রশ্নের উত্তর বিবরণ-ধর্মী হলে, এক হাতে হ্যান্ডেল ধরে আমাদের দিকে ঘুরে হড়বড় করে জবাব দিয়ে যাচ্ছে। তার উৎসাহ দেখার মতো। তার চেয়ে দেখার মতো তার রিক্সা চালানোর কায়দাটা। রিক্সা আপনা-আপনি চলছে, ডানে-বাঁয়ে বাঁক নিচ্ছে না, সামনে গোত্তা খাচ্ছে না। সামিনা ব্যাপার গুলো লক্ষ করছে। আমি লক্ষ করছি, আসন্ন বিশ্বকাপ উপলক্ষে ঢাকার আকাশ কেমন লাল-নীল-সবুজ-হলুদ পতাকায় ছেয়ে গেছে। কেমন আনন্দ আনন্দ লাগে। ক্ষণে ক্ষণে নানান কল্পনার পুলক জেগে ওঠে। কিন্তু পুলক আমাকে ভাসিয়ে নেয় না-সেই ছেলেবেলায় যেমন ভাসাত।

ভাই, এবার বিশ্বকাপ কোন দেশ নেবে বলে আপনার মনে হয়?’ সামিনা টিভি রিপোর্টারের মতো প্রশ্ন করল।

রিক্সাঅলা টকশোর বিজ্ঞ উত্তরদাতার মতো বলল, ‘যারা পুরা টুর্নামেন্ট এ্যাটাকিং ফুটবল খেলব।’

সামিনা গম্ভীর হয়ে গেল। তারপর হাসতে হাসতে জিজ্ঞাসা করল, ‘ফাইনাল ম্যাচেও কী এটাকিং ফুটবল খেলতে হবে?’

‘হয়, ফাইনাল ম্যাচেও।’

সামিনা আবারও গম্ভীর হয়ে গেলো, কথা খুঁজছে। আসলে বিশ্বকাপ সম্পর্কে রিক্সাঅলার আগ্রহ সামিনার ভালো লাগেনি, ভালো লেগেছে ওর বিশ্লেষণাত্মক জ্ঞান, সামিনা বিজনেস স্টাডিজের স্টুডেন্ট। সামিনা প্রশ্ন পেয়েছে, ‘তা কেন? গোল খেয়ে বসলে তো আর শোধ দিতে পারবে না। ঘর সামলে খেলতে হবে না?’ রিক্সাঅলা একটু থেমে সামনের দিকে তাকিয়েই জবাব দিল, ‘ফুটবল ঘরে বইসা খ্যালে না, মাঠে নাইমা খ্যালে।’

সামিনা একটু থেমে, জিজ্ঞাসা করল, ‘আপনার ফেভারিট টিম কি বিশ্বকাপ পাবে?’

‘না।’

‘না কেন?’

‘তাগো টিম-ওয়ার্ক ভালো না।’

‘তাহলে সাপোর্ট করছেন কেন?’

রিক্সাঅলা এ প্রশ্নের কোনো জবাব দিল না। টুংটাং করে বেল বাজিয়ে জোরে জোরে রিক্সা টানতে শুরু করল।

এবার ওরা প্রসঙ্গ পাল্টাল; টিমের প্রসঙ্গ ছেড়ে ভেন্যুর প্রসঙ্গ শুরু করল। গলির মোড়ে গড়ানে রিক্সা ছেড়ে দিয়ে এক পা ভাঁজ করে রিক্সাঅলা বলতে লাগল, ‘...ওই দ্যাশে কুনো বেকার নাই, ম্যালা কাম, কিছু না পারলেও ফাস্টফুডের একটা দোকান দিয়া রাজার হালে চলতে পারবেন। ভিসা নিয়া একবার যাইলেই হইছে, থাইকা যাওন যায়...।’

‘ভিসা পাইলে আপনি যাবেন?’ সামিনা হাসছে।

রিক্সাঅলা হাসছে না। ও গম্ভীর গলায় বলল, ‘দ্যাশ ছাইড়া কই যামু?’

তারপর কিছুক্ষণ নীরব থেকে রিক্সাঅলা ক্যাঁচক্যাঁচ করে প্যাডেল মারতে মারতে স্বগত-স্বরে বলতে লাগল, ‘...কই যামু? পৃথিবী ফুটবলের লাহান গোল। পুব দিক দিয়া হাঁটা ধরলে, একদিন দেখবেন যেইহান থিকা হাঁটন শুরু করছিলেন, সেইহানে পৌঁছাইয়া গ্যাছেন। পশ্চিম দিক দিয়া হাঁটন শুরু করলেও তা-ই হয়। উত্তর ও দক্ষিণের বেলায়ও তা-ই...।’ কথা শেষে একবার পিছন ফিরে তাকাল।

ওদের আলাপ শুনতে শুনতে, কোন জগতে যেন চলে গিয়েছিলাম, কখন যে আমাদের মহল্লায় ঢুকে পড়েছি, টের পাইনি। সামিনা এর মধ্যেই খবর নিয়ে ফেলেছে, ও আমাদের মহল্লারই রিক্সাঅলা। রোজ সকালে ওকে অফিসে নিয়ে যাবার জন্য মাসিক চুক্তির প্রস্তাবও দিয়ে ফেলেছে। রিক্সাঅলা রাজি হয়নি। বোধ হয় সামিনার ভাড়ায় ওর পোষায়নি। সামিনার ভাড়ায় অত সহজে কারোর পোষায় না। কিন্তু আমি জানি, ওই ভাড়াতেই রিক্সাঅলার সাথে ও চুক্তি করে ফেলবে। রিক্সাঅলাও ‘পারলে একটু বাড়ায়য়া দিয়েন’ বলে আনন্দ চিত্তে তা গ্রহণ করবে। সামিনার এত কথা বলবার কারণ বুঝতে পারলাম। সকাল বেলায় ও প্রায়ই অফিসের বাস ফেল করে। বাস মেইন রোডে থামে। মহল্লার রিক্সা-স্ট্যান্ড থেকে ১৫ মিনিটের রিক্সা-দূরত্ব। বেরুতে বেরুতে ওর রোজই দেরি হয়। প্রতিদিনই ও একটা-না-একটা কিছু বাসায় ফেলে রেখে ঘর থেকে বেরুবে, তারপর আবার তালা খুলে ঘরে ঢুকবে, রান্না ঘরে গিয়ে গ্যাসের চুলোর নব ধরে একবার পরখ করবে, নয়তো বেডরুমে ঢুকে এসির দিকে একবার নজর বুলাবে। প্রায় প্রতিদিনই ও বাস মিস করে-অফিসে লেট হয়। তবে ভালো রিক্সাঅলা পেলে সাত-আট মিনিট হাতে নিয়ে বেরলেও বাস ধরতে পারে। ও কাজের মানুষ চেনে। সিটের উপর উঠে বসার কায়দা দেখেই ও বুঝতে পারে রিক্সাঅলাটা কতটুকু কাজের।

‘আমাদের সাথে একদিন বিশ্বকাপের একটি খেলা দেখবেন। আপনার দাওয়াত।’ সামিনা রিক্সা থেকে নেমে ভাড়া মিটিয়ে দেবার সময় বলল। আমি এবার কিছু না বললে ভালো দেখায় না। শুকনো মুখে সামিনার কথাগুলোই বললাম, ‘আপনার দাওয়াত।’ জুনের গরমে রিক্সাঅলার মুখ ঘেমে জবজবে হয়ে গেছে। সিটে বসে উল্টো দিকে প্যাডেল ঘুরাচ্ছে। লুঙ্গি উঠে যাচ্ছে হাঁটুর উপরে। তালের আঁটির মতো শক্ত হাঁটুর মালা তার। ওর দুই কান-পাটার ভেতর দিয়ে দরদর করে ঘাম বেরিয়ে ট্যান-পড়া দুই চোয়াল ভাসিয়ে দিচ্ছে। মনে হলো আমার শুকনো আতিথেয়তা ওকে আহত করেছে। হঠাৎ হাত তুলে তর্জনী নিক্ষেপ করে ও আমাদের বাসার গেট দেখালো। আমি লজ্জা পেলাম, দুই কান গরম হয়ে উঠল। মনে হলো, ও চেঁচিয়ে উঠল, ‘তোরা যা!’ আমি চমকে উঠলাম, ওর ঘামে ভেজা সারা মুখে বৃষ্টি-ভেজা জল-ছপছপ মাঠ দেখতে পেলাম, সেই মফঃস্বল শহরের ফুটবল মাঠ। সামিনা গেটের ভেতর থেকে ডাকছে, ‘কই, আসো।’আমি বললাম ‘আসছি।’

Page 4 of 6

লেখা পাঠাবার নিয়ম

মৌলিক লেখা হতে হবে।

নির্ভুল বানান ও ইউনিকোড বাংলায় টাইপকৃত হতে হবে।

অনুবাদ এর ক্ষেত্রে মুল লেখকের নাম ও সংক্ষিপ্ত লেখক পরিচিতি দিতে হবে।

আরো দিতে পারেন

লেখকের ছবি।

সংক্ষিপ্ত লেখক পরিচিতি।

বিষয় বস্তুর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অঙ্কন চিত্র বা ছবি। 

সম্পাদক | Editor

তারিক সামিন

Tareq Samin

This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

 

লেখা পাঠাবার জন্য

ইমেইল:

This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

 

We use cookies to improve our website. Cookies used for the essential operation of this site have already been set. For more information visit our Cookie policy. I accept cookies from this site. Agree